ads


ওটস এর উপকারিতা


ওটস হল শস্য। এগুলো হলো পুষ্টিকর বীজ যা শরীরের ভারসাম্য বজায় রাখে এবং ওজন নিয়ন্ত্রণ করে। ফাইবার সমৃদ্ধ ওটস শরীরকে শক্তিশালী করে। আজকাল, অনেকেই সকালের নাস্তা এবং অন্যান্য খাবারের জন্য ওটস খাচ্ছেন। শিশুরাও খুব উৎসাহের সাথে ওটস খায়। আসুন ওটস সম্পর্কে আরও জানি।


  • ওটস কি?
  • ওটস এর উপকারিতা কি?
  • ওটস এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কি?
  • বাচ্চাদের জন্য ওটস খাওয়ার সুবিধা কী?



ওটস কি?


ওটস হল শস্য যা পোরিজ নামেও পরিচিত। আগেকার দিনে ওটস শুধুমাত্র প্রাণীরা খেত। কিন্তু, কয়েক বছর পর, বিজ্ঞানীরা ওট পরীক্ষা করে ঘোষণা করেন যে তারা ভোজ্য। ওটসে রয়েছে প্রয়োজনীয় পুষ্টি যেমন ফাইবার, রিবোফ্লাভিন, ভিটামিন বি৬, প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ফসফরাস এবং সেলেনিয়াম। ওটস ফাইবার সমৃদ্ধ যা পানিতে দ্রবণীয়। এভাবে ওটস পেট ভরে এবং ক্ষুধা কমায়। সকালের নাস্তায় ওটস পছন্দ করা হয়।


ওটস এর উপকারিতা কি?


ওটস খাওয়ার একাধিক স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে:


উচ্চ রক্তচাপ কমায়: ওটস সেবন রক্তচাপ ঠিক রাখে এবং উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা প্রতিরোধ করে।


ডায়াবেটিসের জন্য উপকারী: ওটসে অল্প পরিমাণে গ্লাইসেমিক থাকে যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে। এটি বিটা গ্লুকান সমৃদ্ধ যা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য উপকারী। এটি উচ্চ রক্তচাপের মাত্রা কমায়।


রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়: ওটসে থাকা বিটা গ্লুকান শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এটি শরীরকে রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা দেয়। 



ক্যান্সারে উপকারী: ওটসে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। এটি ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি রোধ করে।



হার্টকে পুষ্টি জোগায়: ওটস অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন সি এবং প্রচুর ফাইবার সমৃদ্ধ। এটি হৃদয়কে রক্ষা করে।



ত্বকের জন্য উপকারী: ওটসে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অসংখ্য পুষ্টি উপাদান যা ত্বককে পুষ্ট করে এবং নরম ও সুন্দর করে।



মানসিক চাপ কমায়: অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা মানসিক চাপ সৃষ্টি করে। মানসিক চাপ দূর করতে ওটস খান।



অন্ত্রের জন্য উপকারী: ওটসে রয়েছে ফাইবার যা অন্ত্র এবং মলদ্বারের জন্য উপকারী। যারা কোষ্ঠকাঠিন্যে ভোগেন তারা অবশ্যই ওটস খান।



ওজন কমায়: ওটস প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার। এটি ক্ষুধা কমায় এবং ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখে। (আরও পড়ুন- স্থূলতা কমানোর চিকিৎসা কী)


কোলেস্টেরল কমায়: প্রতিদিন দুই মাস ধরে ওটস খেলে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমে। এটি খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়াতে বাধা দেয়।



ওটস এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কি?


ওটস খাওয়ার স্বাস্থ্য উপকারিতা সবারই জানা, কিন্তু ওটস অতিরিক্ত সেবনে শরীরের কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে।


ন্যূনতম পরিমাণে পুষ্টিসমৃদ্ধ ওটস অনিয়ন্ত্রিতভাবে গ্রহণের ফলে অতিরিক্ত ঘুম, হাড়ের ব্যথা, ক্লান্তি, পেশী দুর্বলতা, দুশ্চিন্তা, নখের দুর্বল বৃদ্ধি, মাইগ্রেন এবং ছানি পড়ার মতো গুরুতর সমস্যা দেখা দেয়।


ভুলভাবে রান্না করা ওটস খেলে কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো পেট সংক্রান্ত অসুখ হয়।


ওটসে ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে এবং এর অত্যধিক সেবন স্বাস্থ্যের সমস্যা সৃষ্টি করে।

ওটস বিভিন্ন জাতের পাওয়া যায়। চিনি মিশিয়ে ওটস খাওয়া ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য ক্ষতিকর।


বাচ্চাদের জন্য ওটস খাওয়ার সুবিধা কী?


  • ওটসে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে। একটি শিশুকে ওট খাওয়ান যখন তার বয়স 6 মাসের বেশি হয়। এটি শিশুর স্বাস্থ্যের উন্নতি করে।
  • সকালের নাস্তায় বাচ্চাদের ওটস দিন। কারণ ওটসে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে।
  • ওটস খেলে শিশুদের মস্তিষ্ক দ্রুত বিকাশ লাভ করে।
  • সঠিক পরিমাণে ওটস শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করে।
  • ওটস পুষ্টির একটি সমৃদ্ধ উৎস যা শিশুদের সংক্রমণ প্রতিরোধ করে।
  • বাচ্চাদের কোমল হাড় মজবুত করতে দুধের সাথে ওটস মিশিয়ে খেলে উপকার পাওয়া যায়।




 ওটস একটি সম্পূর্ণ শস্যের খাদ্য, শক্তিশালী ফাইবার বিটা-গ্লুকান সহ কার্বোহাইড্রেট এবং ফাইবারের একটি ভাল উৎস। ওটসকে পৃথিবীর সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর শস্য হিসাবে বিবেচনা করা হয়, গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন, খনিজ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উদ্ভিদ যৌগ দ্বারা লোড করা হয়। ওটস সাধারণত ওটমিল হিসাবে সকালের নাস্তায় খাওয়া হয়, যা এত সহজে তৈরি করা যায়। আপনি বিভিন্ন উপায়ে ওটস উপভোগ করতে পারেন। সবচেয়ে জনপ্রিয় উপায় হল সকালের নাস্তায় দুধের সাথে ওট খাওয়া। ঝটপট ওটস প্রস্তুত করা খুব সহজ। বাটিতে কিছু ওট ঢালুন, মধু, মুসলি, শুকনো খাবার, স্ট্রবেরি, কলা, ডালিম ইত্যাদির মতো ফল যোগ করুন এবং অবশেষে বাটিতে গরম দুধ যোগ করুন। একটি পাত্রে উপাদানগুলি একত্রিত করুন এবং আপনার ওটমিল উপভোগ করুন। চামচ দিয়ে মেশান এবং এটি খাওয়ার জন্য প্রস্তুত। ওটস অবিশ্বাস্যভাবে সবচেয়ে পুষ্টিকর-ঘন খাবার যা আপনি খেতে পারেন। ওটসের অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে, যেমন ওজন হ্রাস, রক্তে শর্করার মাত্রা কমায় এবং রক্তচাপ কমায়, এইভাবে হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস করে এবং অন্যান্য সুবিধা প্রদান করে। ওটসে রয়েছে অনেক শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। বিটা-গ্লুকান মোট কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে, স্বাস্থ্যকর অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়া বাড়ায়। যা আপনার উন্নত পরিপাকতন্ত্র নিশ্চিত করবে। যাতে যে কেউ কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি পেতে পারেন। ওটস কোলেস্টেরল কমিয়ে হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে পারে এবং রক্তে শর্করার সংবেদনশীলতা উন্নত করতে পারে। এটি শুধুমাত্র সকালের একটি সুস্বাদু নাস্তাই নয়, সারাদিনের জন্যও খুব ভরাট, যা আপনার শরীরের ওজন কমাতে সাহায্য করে। ওটস আপনার ত্বকের অভ্যন্তরীণ উজ্জ্বলতা বাড়াতে সাহায্য করে। সুতরাং, আমাদের উল্লেখ করতে হবে যে ওটস প্রতিদিনের স্বাস্থ্যকর ডায়েটের জন্য একটি দুর্দান্ত খাবার। ওটস হল গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন, খনিজ, বিটা-গ্লুকান এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সহ পুষ্টিকর খাবারের একটি সম্পূর্ণ প্যাকেজ। তাই এখন থেকে, আপনার সকাল শুরু হবে একটি অবিশ্বাস্য রকমের পুষ্টিকর ব্রেকফাস্ট দিয়ে, যার নাম ওটস। ওটস খাওয়ার ফলে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত কোনো সমস্যা দেখা দিলে অবিলম্বে একজন জেনারেল ফিজিশিয়ানের সাথে যোগাযোগ করুন!সবচেয়ে জনপ্রিয় উপায় হল সকালের নাস্তায় দুধের সাথে ওট খাওয়া। ঝটপট ওটস প্রস্তুত করা খুব সহজ। বাটিতে কিছু ওট ঢালুন, মধু, মুসলি, শুকনো খাবার, স্ট্রবেরি, কলা, ডালিম ইত্যাদির মতো ফল যোগ করুন এবং অবশেষে বাটিতে গরম দুধ যোগ করুন। একটি পাত্রে উপাদানগুলি একত্রিত করুন এবং আপনার ওটমিল উপভোগ করুন। চামচ দিয়ে মেশান এবং এটি খাওয়ার জন্য প্রস্তুত। ওটস অবিশ্বাস্যভাবে সবচেয়ে পুষ্টিকর-ঘন খাবার যা আপনি খেতে পারেন।ওটসের অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে, যেমন ওজন হ্রাস, রক্তে শর্করার মাত্রা কমায় এবং রক্তচাপ কমায়, এইভাবে হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস করে এবং অন্যান্য সুবিধা প্রদান করে। ওটসে রয়েছে অনেক শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। বিটা-গ্লুকান মোট কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে, স্বাস্থ্যকর অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়া বাড়ায়। যা আপনার উন্নত পরিপাকতন্ত্র নিশ্চিত করবে।যাতে যে কেউ কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি পেতে পারেন। ওটস কোলেস্টেরল কমিয়ে হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে পারে এবং রক্তে শর্করার সংবেদনশীলতা উন্নত করতে পারে। এটি শুধুমাত্র সকালের একটি সুস্বাদু নাস্তাই নয়, সারাদিনের জন্যও খুব ভরাট, যা আপনার শরীরের ওজন কমাতে সাহায্য করে। ওটস আপনার ত্বকের অভ্যন্তরীণ উজ্জ্বলতা বাড়াতে সাহায্য করে। সুতরাং, আমাদের উল্লেখ করতে হবে যে ওটস প্রতিদিনের স্বাস্থ্যকর ডায়েটের জন্য একটি দুর্দান্ত খাবার।ওটস হল গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন, খনিজ, বিটা-গ্লুকান এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সহ পুষ্টিকর খাবারের একটি সম্পূর্ণ প্যাকেজ। তাই এখন থেকে, আপনার সকাল শুরু হবে একটি অবিশ্বাস্য রকমের পুষ্টিকর ব্রেকফাস্ট দিয়ে, যার নাম ওটস।ওটস খাওয়ার ফলে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত কোনো সমস্যা দেখা দিলে অবিলম্বে একজন জেনারেল ফিজিশিয়ানের সাথে যোগাযোগ করুন!

Post a Comment

Previous Post Next Post

ads p1

ads p2